গুগল অ্যাডসেন্স প্রোগ্রামে এপ্লাই করার পূর্বে আপনাকে ওয়েবসাইটের যে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে।(মেগা)

আস্ সালামু ওয়ালাইকুম,

কেমন আছেন সবাই? আশাকরি ভালোই আছেন। আজ নিয়ে এলাম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের আলোচনা নিয়ে। গুগল অ্যাডসেন্স প্রোগ্রামে এপ্লাই করার পূর্বে আপনাকে ওয়েবসাইটের যে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে তা নিয়েই আজকের আলোচনা। আশাকরি আপনাদের কিছুটা উপকার করতে পারব। তো চলুন শুরু করা যাক……..

গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট দুই ধরনের হয়।

১. হোস্টেড গুগল অ্যাডসেন্স

২. নন-হোস্টেড গুগল অ্যাডসেন্স বা সম্পূর্ণ অনুমোদিত অ্যাডসেন্স

হোস্টেড অ্যাডসেন্স মানে হচ্ছে যারা আপনাকে ফ্রি হোস্টিং এবং ডোমেইন দিচ্ছে এবং এটি ব্যাবহার করে আপনি কোন খরচ ছাড়াই এদের মাধ্যমে আপনার পোস্ট বা ভিডিও শেয়ার করতে পারছেন। এইসকল মাদ্ধম ব্যাবহার করে আপনি যে অ্যাডসেন্স পাবেন সেটা হচ্ছে হোস্টেড অ্যাডসেন্স। তবে অবশ্যই মনে রাখবেন এসকল সাইট গুলোকে গুগল অ্যাডসেন্স এর পার্টনার হতে হবে। হোস্টেড এর ক্ষেত্রে আপনি যা ইনকাম করবেন সেটা তিনটা অংশে(প্রতিটা অংশের পারসেন্টেজ ভিন্ন হবে) ভাগ হবে। এক অংশ গুগল পাবে, আরেকটা ওই প্রোভাইডার পাবে এবং শেষে আপনি পাবেন। হোস্টেড এর কিছু উদাহরনঃ ইউটিউব, ব্লগার, ওয়ার্ডপ্রেস ইত্যাদি।

আর নন-হোস্টেড অ্যাডসেন্স মানে হচ্ছে ডোমেইন এবং হোস্টিং আপনার নিজের কেনা এবং এর ফুল কন্ট্রোল আপনার হাতে। যার মধ্যে কোন থার্ড পার্টির সংযুক্ততা নেই। তাই এই সকল সাইটের মাধ্যমে ইনকামও হবে বেশি। শুধু মাত্র কিছু অংশ গুগল নেবে বাকি অংশ আপনি পাবেন।

এবার আসুন আলোচনা করা যাক অ্যাডসেন্সে এপ্লাই করার পূর্বে আপনার সাইটের যে বিষয় গুলো চেক করে নিবেন……

১. পেজ টাইপ/ব্লগের ডিজাইনঃ মনে করেন আপনি দুনিয়ার সব কালার দিয়ে সাইট ডিজাইন করলেন। এতে ভিজিটর যখন ভিজিট করবে তখন এত কালার মিশ্রন দেখে পরবর্তীতে সে নাও ঢুকতে পারে। এতে ভিজিটর কমে যাবে এবং অনুন্নত সাইট ডিজাইনের জন্য অ্যাডসেন্স এপ্রুভাল নাও পেতে পারেন।

২. সাইটটি গুগল অ্যাডসেন্সের নীতিমালা মেনে তৈরি করা হয়েছে কি-নাঃ পুওর কন্টেন্ট, কপি পেস্ট কন্টেন্ট, কোন অরগানিক ট্রাফিক নেই এমন হলে এপ্রুভাল নাও পেতে পারেন।

৩. অবশ্যই পর্যাপ্ত পোস্ট থাকতে হবে অ্যাডসেন্স এ এপ্লাই করার পূর্বে। আমার মতে কমপক্ষে ৪০+ পোস্টের পরে যেয়ে এপ্লাই করা উচিত। আমার যেমন ছিল ৬০টি এপ্লাই এর পূর্বে।

৪. রেসপন্সিভ ডিজাইনঃ আপনার সাইটের থিম/লেআউট রেস্পন্সিভ হলে ভালো হবে। কারন আপনি যদি প্রফেশনাল লুক দিতে পারেন তাহলে ভিজিটর আপনার সাইটে বেশিক্ষণ থাকবে। এতে করে আপনি বাউন্স রেট বেশি পাবেন। যেটা সাইট র‍্যাঙ্কিং এ গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

৫. ডোমেইনের বয়সঃ ডোমেইনের বয়স যত বেশি হবে এপ্রুভাল পাওয়াটাও সহজ হবে। কারন গুগল বুঝবে যে সাইটটা স্থায়ী হবে ভবিষ্যতে। এক্সপার্টদের মতে উন্নত দেশ গুলোতে মিনিমাম ৪৫ দিনের আগে এবং আমাদের বা আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে মিনিমাম ৩ মাসের আগে এপ্লাই করা উচিত নয়।

৬. হাই কোয়ালিটি কন্টেন্টঃ কন্টেন্ট যত ভালো হবে ভিজিটর তত বেশি হবে এটা সবাই জানেন। এটা আর আলোচনা করছি না।

৭. আপনার সাইটে অবশ্যই About, Contact Us, Privacy policy পেজ থাকতে হবে। এটা অন্যতম একটা শর্ত গুগলের। এগুলো অটো তৈরি করার জন্য বিভিন্ন সাইট আছে। আপনি ওখান থেকে তৈরি করে নিতে পারেন।

৮. একটি ভালো মানের XML সাইট্ম্যাপ তৈরি করুন। এটা ওয়েবমাস্টার টুল এর ক্ষেত্রে অনেক কার্যকরী। গুগলে ইনডেক্স সহজে সম্পন্ন হয়। ওয়ার্ডপ্রেস এ বিভিন্ন প্লাগিন দিয়ে করতে পারেন(যেমনঃ Yoast) আর ব্লগার এ নিচের লিঙ্ক এর মাধ্যমে করতে পারেন। এখানে

৯. আপনার সাইটে যদি অন্য কোন অ্যাড নেটওয়ার্কের অ্যাড বসান থাকে দ্রুত সরিয়ে ফেলুন। এগুলো গুগল এপ্রুভ করে না।

১০. ডোমেইনের সাথে মিল রেখে ইমেইল আইডি করলে ভালো হয়। করতেই হবে এমন না।

১১. গুগল অ্যানালাইটিক কোড বসালে খুব ভালো। এতে সাইটটি গুগলের কাছে আরো ট্রাস্টেড হয় আর এপ্রুভালের চান্সও বেশি।

১২. অ্যাডাল্ট কন্টেন্ট তো সাপোর্ট করেই না আপনারা জানেন তাও একটু মনে করিয়ে দিলাম।

আশাকরি এগুলো চেক করে এপ্লাই করলে কয়েকদিনেই এপ্রুভাল পেয়ে যাবেন।

গুগল অ্যাডসেন্স প্রোগ্রাম পলিসি সম্বন্ধে জানতে আমার পর্ব গুলো দেখতে পারেন। পর্ব- ১পর্ব- ২পর্ব- ৩

যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই ভিজিট করবেন এবং ফ্যানপেজে লাইক দিবেন(অনুরোধ রইল)।

বি. দ্র. অনুগ্রহ করে কমেন্ট করুন এবং আপনাদের মতামত জানান। আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিবেন fb.com/techfunbd. আপনাদের মতামত আমাকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে। আপনাদের ভালো লেগেছে কিনা জানাবেন………

1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (1 votes, average: 5.00 out of 5)
Loading...

admin

If somethings happens, i must first tell you.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *